Home Blog Page 3

রামগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী ঐদারা দিঘি- নতুন ইজারাদার বুলবুল পাইন।।

0

কনক মজুমদার (লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি):

লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলার ঐতিহ্যবাহী ঐদারা দিঘিটি আগামী পাঁচ বছরের জন্য ইজারা নিয়েছে মাহবুবুল ইসলাম বুলবুল পাইন। তিনি গতবছর রামগঞ্জ উপজেলার শ্রেষ্ঠ মৎস চাষী হিসেবে পুরুষ্কার প্রাপ্ত মৎসচাষী।।
গত পহেলা জুন মালিক পক্ষের মোট ১৫ জনের উপস্থিতিতে মৎস্য চাষি বুলবুল পাইনকে দিঘিটি ইজারা দিয়ে আগামী পাঁচ বছর চাষের জন্য বুঝিয়ে দেয়া হয়।
ঐতিহ্যবাহী ঐদারা দিঘিটিতে  ৮৫১ শতাংশ জমি রয়েছে যার মধ্যে আবুল কালাম ৫০০ শতাংশ, ইউসুফ আলী ৭৫ শতাংশ, সায়েদুল হক ৫০ শতাংশ,আব্দুল হক পাটোয়ারি ১৫ শতাংশ, শামছুল ইসলাম পাটোয়ারী ২০ শতাংশ, আরিফুল হক ৬৫ শতাংশ,সজিব পাটোয়ারী ১০ শতাংশ, সৈয়দ আহমদ ৩০ শতাংশ, জয়নাল আবেদিন ২০ শতাংশ, জাহাঙ্গির আলম ০৫ শতাংশ, আমেনা বেগম ২৫ শতাংশ, মোহাম্মদ ইউনুছ খান ১০ শতাংশ, রাজিয়া বেগম ৬ শতাংশ, মোহাম্মদ হাফেজ আবু ইউসুফ ১০ শতাংশ,মোঃঅজি উল্যা ১০ শতাংশ জমির মালিক।
বিগত দেড় বছর আগে এই দিঘিটি আবদুল মতিন থেকে খরিদ করে নতুন মালিক হন এই ১৫ জন মালিক।

আজ বিকালে দিঘির সকল মালিকগন উপস্থিত হয়ে ২৭ লক্ষ টাকা ইজারামূল্য নির্ধারণ করে বুলবুল পাইনকে আগামী ৫ বছরের জন্য ইজারা বুঝিয়ে দেন তারা, এসময় দিঘিতে রুই, কাৎলা,মৃগেল সহ বিভিন্ন দেশি মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়।।
এসময় দিঘিকে ঘিরে এলাকায় উৎসবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়।।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন,জেলা পিপি  এ্যাড. জসীম উদ্দিন,সাবেক জেলা ছাএলীগ এর সাধারণ সম্পাদক রাকিব হোসেন লোটাস,.সাবেক ছাএ নেতা মেয়র তাহের এর বড় ছেলে এ এইচ এম বিপ্লব,জেলা ছাএলীগ এর সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন ভূইয়া,জেলা পরিষদের সদস্য সৈকত মাহামুদ শামছু,পৌর ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মেহেদী হাসান শুভ, ভাদুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাবেদ হোসেন, ,যুবলীগ নেতা তারেক আজিজ,সম্রাট মাহমুদ,সাবেক ছাএনেতা জিসান,বিশিষ্ট ব্যবসায়ী নাছির,মিশন,তুহিন,ইকবাল,সোহাগ সহ রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব, সাংবাদিক,পুলিশ প্রশাসন সহ স্থানীয় এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।।

শিবালয় কৃষি অফিস থেকে কৃষক তাড়ানো: ঘটনার বিস্তারিত

0
কৃষি অফিসার

অনলাইন ডেস্কঃ মানিকগঞ্জের শিবালয়ে কৃষি পরামর্শ নিতে আসা এক কৃষককে অফিস থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। একইসঙ্গে ওই কৃষকের সঙ্গে বাজে আচরণেরও অভিযোগ কৃষি অধিদপ্তরের মাঠকর্মীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনার বিচার চাইতে গিয়ে ওই মাঠকর্মীর উপরস্থ কর্মকর্তার অসদাচরণের শিকার হওয়ারও অভিযোগ করেছেন তিনি। নারী ওই কর্মকর্তার সঙ্গে ওই কৃষক ও এক ব্যক্তির কথোপকথনের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

এ ঘটনায় জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর দুই সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। বিষয়টি খবরের পাতা হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও। তবে এ নিয়ে শুরু হয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়াও।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, পোকার আক্রমণে মরে যাওয়া ধানের গোছা নিয়ে কৃষি অধিদপ্তরে আসেন ওই এলাকার ষাটোর্ধ কৃষক ফজলুর রহমান। অধিদপ্তরের মাঠকর্মী উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. সালাহউদ্দিন সুজনের কক্ষের বাইরে দাঁড়িয়ে ছিলেন তিনি। একপর্যায়ে সেবা দেওয়ার জন্য ওই কৃষককে নিজের কক্ষে ডেকে নেন মো. সালাহউদ্দিন। তাঁর কাছে সমস্যা জানতে চান। তবে তিনি সমস্যা না জানিয়ে জেলার কৃষি কর্মকর্তার নাম্বার চান। জানান, আগের বছর জেলা কৃষি কর্মকর্তা তাকে সহযোগিতা করেছিলেন।

তবে মাঠকর্মী তাকে নিজেরাই সহযোগিতা করবেন বলে জানান। তাতে আপত্তি জানিয়ে কৃষক শুরু করেন তর্ক। বিষয়টি নিয়ে উত্তপ্ত পরিস্থিতি তৈরি হয়। ওই কৃষক কৃষি অধিদপ্তরের কার্যালয় ত্যাগ করেন। ফোন করে ডেকে নেন স্থানীয় এক সংবাদকর্মীকে। এরপর আবার তারা কৃষি অফিসে যান। বিষয়টি নিয়ে নালিশ দিয়ে মাঠকর্মীর শাস্তি চান। সেখানে তাকে বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেওয়া ও কৃষকের সমস্যা সমাধানের প্রতিশ্রুতিও দেন ওই নারী কর্মকর্তা। তবে এরমধ্যেই তৃতীয় কারো সঙ্গে কথা হয় তার। সেই কথোপকথনের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

কৃষক ফজলুর রহমানের বক্তব্য: কৃষি অধিদপ্তরে গিয়ে সরাসরি মানিকগঞ্জ জেলা কৃষি অফিসারের মোবাইল ফোন নম্বর চান ফজলুর রহমান। তিনি বলেন, ‘আমি ধান নিয়ে গেছি পোকে খাওয়া। কইলাম, আপনেরা মানিকগঞ্জ যে জেলা অফিসার আছে তারে একটু ফোন দেন। ভিডিও কইরা দেখান। কোন ওষুধ দিতে বলে, আমি দিয়া দিমানি।’ মাঠকর্মী যেতে অস্বীকার করেছে কি না প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘উনাকে দেখাইছি। বলছি দেখেন। আর আপনেরা যদি ওষুধ না দেন, তাইলে জেলার উনার সাথে আমার পরিচয় আছে, জেলা অফিসার। গত বছর ধান নিয়ে গেছি। সে আমাকে ডেকে নিয়ে সাজেশন দিল। তাইতে আমি উনার নাম্বার চাইছি। তারমধ্যে এ ধরনের আচরণ করলো। আমাকে এইগুলা বললো।

চারপাঁচজন লোক এগুলা বললো।’ এরপরই তার সঙ্গে অসদাচরণমূলক বাক্য বিনিময় হয় বলেও জানান এই কৃষক। এরপরই তিনি সাংবাদিককে কল দেন। সাংবাদিককে নিয়ে তিনি ফের সেই অফিসে যান। যে সময় ওই বাক্য বিনিময় হয় তখন তিনি নারী কর্মকর্তাকে দেখেননি বলেও জানান। ফজলুর রহমান জানান, নারী কর্মকর্তার সঙ্গে তার কোনো কথা হয়নি। মহিলা কর্মকর্তা কি বলেছে প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘বাড়ি চইলা আইছি। উনার কাছে যাই নাই।’

প্রত্যক্ষদর্শীদের বক্তব্য: ওই কৃষকের সঙ্গে মাঠকর্মী উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. সালাহউদ্দিন সুজনের বাক্যবিনিময়ের সময় সেখানেই উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় আব্দুল আলীম ও অধিদপ্তরের কর্মী তপন সাহা। সরাসরি প্রত্যক্ষ করা দুই ব্যক্তির বক্তব্যই প্রায় মিলে যায়। কী হয়েছিল সেখানে, এমন প্রশ্নে আব্দুল আলীম বলেন, ‘ওই মুরুব্বি বাইরে ছিলেন। তারপর তাকে কর্মকর্তা কক্ষে ডেকে নেন। আমিও একটা কাজে সেখানে ছিলাম। তখন মুরুব্বি সরাসরি জেলা কর্মকর্তার নাম্বার চান। এইটা নিয়েই তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটি শুরু হয়। ওই কর্মকর্তা নিজেই দেখতে চান বলে দেন। আর মুরুব্বি বলে জেলা কর্মকর্তাকে বলবে। এটা নিয়েই তর্ক হয়।’ এছাড়া আরেক প্রত্যক্ষদর্শী তপন সাহা বলেন, ‘আমি ঘটনার সময় ওই রুমেই ছিলাম। ওই অফিসারকে মুরুব্বি নাম্বার দিতে বলেন। আর অফিসার বলে, আপনি আমাকেই বলেন কী সমস্যা। তখন মুরুব্বি তাকে বেয়াদব বলেন। আর বলেন, তোমরা প্রধানমন্ত্রীর চাকরি করো। আমরা বেতন দেই। এসব কথা বলতে বলতেই তিনি বেরিয়ে যান।’

কৃষি কর্মকর্তার বিতর্ক: একবার চলে যাওয়ার পর সাংবাদিকসহ দ্বিতীয়বার কৃষি অধিদপ্তরে আসেন কৃষক ফজলুর রহমান। ওই সময় উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রাজিয়া তরফদারের কক্ষে গিয়ে সাংবাদিকরা কৃষকের এই অভিযোগের বিষয়টি জানান। রাজিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি সাংবাদিকদের সামনে কৃষকের সঙ্গে ধমকের স্বরে কথা বলেন এবং আচরণ ঠিক হয়নি বলে তার দিকেই অভিযোগ তুলেন এবং ইংরেজিতে নানা বুলি আওড়ান। সাংবাদিকরা এর প্রতিবাদ করলে তিনি তাদের ওপরও চড়াও হন এবং অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন। ওই ঘটনার একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। যেখানে এক ব্যক্তিকে ভিডিও করতে দেখে রাজিয়া বলেন, ‘আপনি অফ করেন ওইটা। উইদাউট পারমিশন আপনি ভিডিও করতে পারেন না।’ জবাবে ভিডিও করা ব্যক্তি তাকে বলেন, ‘আপনি কৃষকের সামনে ইংলিশে কথা বলেন।

কৃষক কি ইংলিশ বোঝে? দুইবার এ কথা বলা হয়। আপনি কেন একজন লুঙ্গি পরা লোকের সাথে আপনি কেন তাকে আপনার অফিসের লোকজন বলবে হচ্ছে যে আসছেন আমি দেখতেছি। তাহলে কৃষককে কেন এটা (বের) করা হলো? কৃষককে কেন বের করে দেওয়া হলো।’ রাজিয়া জবাব দিতে গেলেও ভিডিও করা ব্যক্তি তাকে বলতে থাকেন, ‘একজন কৃষক আসছে। আপনার দায়িত্ব হচ্ছে, সে লুঙ্গি পরে আসছে, স্যান্ডেল পরে আসছে, আপনি কৃষককে ভালো মতো দেখবেন।’ ধমকের সুরে বলেন, ‘একটা কৃষক কেন মন খারাপ করে বেরোয় যাবে এটা বলেন। একইসঙ্গে আরও কয়েকজন তাকে কৈফিয়ত করেন। এছাড়াও আরও ধমক দিতে থাকেন।’

এতে রাজিয়া বলেন, ‘অযথা বের করা হয় নাই। কৃষককে নিয়ে এখানে মিসবিহ্যাভ করছেন।’ এদিকে এ ঘটনার পরপরই কৃষকের অভিযোগের ভিত্তিতে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা সালাউদ্দিন সুজনকে কৈফিয়ত তলব করেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রাজিয়া তরফদার। কৈফিয়ত তলবে তিন কর্মদিবসের মধ্যে ব্যাখ্যাসহ জবাব দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগটি চাকুরি বিধিমালার পরিপন্থি হওয়ায় কেন বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে না তাও উল্লেখ করা হয়েছে। এসব বিষয়ে মো. সালাহউদ্দিন সুজন বলেন, ‘আমি ওই কৃষককে ডেকে নিজের কক্ষে এনে তার সমস্যা জানতে চাই। তখন তিনি অসদাচরণ করেন। একপর্যায়ে স্থান ত্যাগ করেন।

কিছুক্ষণ পর আবারও লোকজনসহ আসেন। আমার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এই বিষয়ে আমাকে নোটিশ দিয়েছেন। আমি জবাব দেব।’ কৃষকের অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি এমন কোনো মন্তব্য করিনি। সেখানে আরও অনেকেই ছিল। তারাও দেখেছেন। এতো কিছুর পরও জনগণের সেবক হিসেবে আমাদের স্যার তার সমস্যা শুনে সমাধান দিয়েছেন।’ এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রাজিয়া তরফদার বলেন, ‘কৃষক ফজলুর রহমান মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) দুপুরে ধানের চারার সমস্যা নিয়ে পরামর্শ নেওয়ার জন্য অফিসে আসেন। কৃষক ফজলুর রহমানের সাথে উপসহকারী কৃষি অফিসার সালাউদ্দিন সুজনের কথোপকথনের এক পর্যায়ে বাকবিতন্ডার সৃষ্টি হয়। এছাড়া কৃষকের অভিযোগ তার জমি পরিদর্শন করেন নাই।

যে কারণে দায়িত্বশীলতা ও মাঠ ব্লকের বিভিন্ন কর্যক্রমে গাফলতির দায়ে ওই কর্মকর্তাকে কৈফিয়ত তলব করা হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘কৃষক ফজলুর রহমান আমার নিকট আসলে আমি মনোযোগ দিয়ে তার সমস্যা ও অভিযোগ শুনি। তার সাথে আমার কোন প্রকার অসৌজন্যমূলক আচরণের ঘটনা ঘটেনি।’ মানিকগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রবিআহ নূর আহমেদ জানান, ‘কৃষি অফিসের দায়িত্বই হচ্ছে কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নে কাজ করা। সেখানে কৃষকের অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করে অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। একই সাথে তিনি জানান, ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের বোরো খেত দেখতে ঘটনাস্থলে জেলা থেকে একজন কর্মকর্তা পাঠানো হবে এবং সার্বিক পরামর্শসহ সহযোগিতা করা হবে।’

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে আমেরিকা প্রবাসীর কাপড় বিতরণ

0

নিজস্ব প্রতিনিধি

শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলায় ৫ এপ্রিল ২০২৪ শুক্রবার সকালে উপজেলার ব্রিজপাড় এলাকায় ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে বীর মুক্তিযোদ্ধা এ,বি,এম সিদ্দিকের সন্তান আমেরিকা প্রবাসী হায়াৎ মাহমুদ লিটনের পক্ষ থেকে কাপড় ও লুঙ্গি বিতরণ করা হয়েছে। বিশিষ্ট সাংবাদিক এস.কে সাত্তারের সভাপতিত্বে অসহায়, হতদরিদ্র ২৪৬ জন পরিবারের মাঝে শাড়ি ও লুঙ্গি বিতরণ করা হয়। এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা সুরুজ্জামান আকন্দ। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, ঝিনাইগাতী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. বশির আহমেদ বাদল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ রায়, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমিটির আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাম। ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে প্রতি বছরের ন্যায় এসমস্ত ঈদ উপহার প্রদান করা হয়। ১২৮টি শাড়ি ১১৮টি লুঙ্গি অসহায় পরিবারগুলোর মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। অসহায় পরিবারগুলো নতুন কাপড় হাতে পেয়ে খুশি হয়ে সকলের জন্যে দোয়া করবেন জানিয়ে সকলের ঈদ ভালো কাটুক এই প্রত্যাশা করেন। সার্বিক তত্ত্বাবধানের দায়িত্ব পালন করেন মহিলা সিদ্দিকা মাদ্রাসার সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানী—টিটু।

পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সর্বশেষ দোয়া ও ইফতার মাহফিল

0

মেনহাজুল ইসলাম তারেক, দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি-

আজ (০৫ এপ্রিল) শুক্রবার পার্বতীপুর শহর সন্নিকটস্থ তাজ রাইস মিলে উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে সর্বশেষ ইফতার, দোয়া মাহফিল ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে ১০ টি ইউনিয়নে ইফতার, দোয়া মাহফিল ও মতবিনিময় সম্পন্ন হয়। আজকের তাজ রাইস মিলে অনুষ্ঠেয় আলোচনা সভায় পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হাফিজুল ইসলাম প্রামানিকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন, জেলা আওয়ামীলীগের বিপ্লবী সাধারন সম্পাদক আলতাফুজ্জামান মিতা, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র আমজাদ হোসেন, পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, পার্বতীপুর উপজেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক বেল্লাল হোসেন স্বপন প্রমুখ।প্রধান অতিথি তার বক্তৃতায় বলেন, আমাদের প্রানপ্রিয় নেতা সাবেক মন্ত্রী পার্বতীপুর-ফুলবাড়ি এলাকার সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান ফিজারের নির্বাচনী এলাকার মাটি আওয়ামীলীগের ঘাটি আর তাইতো তিনি ৮ বারের নির্বাচনী সংসদ সদস্য। সেই নেতা ও মাটির কৃতী সন্তান জননেতা হফিজুল ভাই এবারেও উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী, তাঁকে বিজয়ের মালা পরিহিত অবস্থায় দেখতে চাই। তিনি উপস্থিত সকলের কাছে তার বিজয় কামনায় দোয়া চান। জেলা সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ বলেন, পার্বতীপুরের মানুষেরা ভাগ্যবান। তাই তারা বারবার যোগ্য মানুষকেই নির্বাচিত করেন। তিনিও হাফিজুল ইসলাম প্রামানিকের জন্য দোয়া চান। পার্বতীপুর পৌর মেয়র আমজাদ হোসেন বলেন, পার্বতীপুরে এবারের উপজেলা নির্বাচন হবে অন্যরকম। আমাদের গায়ে একবিন্দু রক্ত থাকা অবস্থায় মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তিকে জয়লাভ করতে দেব না। কারন আমাদের অভিভাবক দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাতো আমাদের মাথায় ছাতা হয়ে আছেন। এর আগে উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের সকল অঙ্গ-সংগঠনের নেতা-কর্মীরা তাদের নিজ নিজ বক্তব্য তুলে ধরেন। উক্ত সভায় পার্বতীপুরে কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আনন্দ উল্লাস সকল কিছুই যেনো হার মেনেছে শেরপুরের বৃদ্ধা রবিরনের।

0

নিজস্ব প্রতিনিধি

ঈদ মানেই আনন্দ, আনন্দ উল্লাস সকল কিছুই যেনো হার মেনেছে শেরপুরের বৃদ্ধা রবিরনের(৭০) এর কাছে।যে সময়ে ঈদকে সামনে রেখে প্রতিটি গ্রাম ও মহল্লায় ঈদের আনন্দের আগাম জানান দিচ্ছিলো
সেই মূহুর্তেই অনাহারে থেকে জীবন বাঁচার তাগিদে এক মুঠো ভাতের আশায় রাস্তায় শুয়ে সাহায্যের জন্য আকুতি মিনতি করছিলো অসুস্থ্য বয়বৃদ্ধা রবিরন বেগম(৭০)।এই ঘটনাটি ঘটেছে শেরপুর জেলার সদর উপজেলার ৬ নং পাকুড়িয়া ইউনিয়নের
চকপাড়া গ্রামে।এলাকাবাসী’র সূত্রে জানা যায়,
চকপাড়া গ্রামের স্হায়ী বাসীন্দা মৃত. কমল উদ্দীনের স্ত্রী ও এক মেয়ে সন্তান রেখে মৃত্যু বরণ করেন কমল উদ্দিন। সাম্প্রতিকালে একমাত্র মেয়েটিও মৃত্যু বরণ করলে পুরো সংসারের আর কেউ না থাকায় একাই অতি কষ্টে দিনাতিপাত করে আসা অবস্হায় মৃত.মেয়ের ঘরের একমাত্র একটি ছেলে সন্তান মো. কাকন মিয়া(৩০) ঢাকায় একটি গার্মেন্টসের কর্মী হিসেবে তার স্ত্রী সন্তান নিয়ে ঢাকাতেই বসবাস করতো।নানীর রবিরন বেগমের এমন পরিস্থিতির খবরের কারনে তার নাতি কাকন স্ত্রী সন্তান নিয়ে ঢাকা থেকে শেরপুর জেলার তার নিজ এলাকায় চলে আসেন।এসে দেখেন তার নানী
প্যারালাইসিস্ রোগে আক্রান্ত হয়ে না খেয়ে ঘরে একাকাই পড়ে আছেন। কিন্তু একমাত্র নাতি কাকন মিয়া কোনো উপায় না দেখে একটি ভাড়ায় চালিত রিক্সা নিয়ে তার স্ত্রী,দুই সন্তান ও নানীকে নিয়ে ভাংগাচোরা একটি ঘরের মধ্য গাদাগাদি করে অতি কষ্টে অনাহারে অর্ধাহারে বসবাস করে আসছিলো।কিন্তু আর্থিক সংকটের কারনে নানীর সুচিকিৎসা করতে না পারায় শেষ পর্যন্ত নানীকে বাঁচানোর জন্য গতকাল ৩ মার্চ সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নানীকে রাস্তায় শুয়ে রেখে সাহায্যের হাত বাড়ান তার একমাত্র নাতি কাকন মিয়া। অনেকেই ৫, ১০ টাকা করে দিলেও ওই সময়ে ওই ইউনিয়নের কোনো ধণাঢ্য ব্যক্তি ও কোনো জন প্রতিনিধি সারা মেলেনি।এসময় স্হানীয় এক মাদ্রাসার শিক্ষক মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন,মানবিক কারনে মৃত্যুর সন্নিকটে সমাজের বৃত্তমান ব্যাক্তিদের এগিয়ে আসা দরকার মনে করেন তিনি।এছাড়াও তিনি আরো বলেন,সমাজের বৃত্তবান ব্যাক্তিদের কাছে সাহায্যের আবেদন রেখে একটি বিকাশ নাম্বার দেন তিনি। যাহার নাম্বার- 01996589982,সে সকলের প্রতি আর্থিক সহযোগিতার জন্য বিনিত অনুরোধ জানিয়েছেন।

ঢেউটিন ও নগদ টাকার চেক বিতরণ করলেন সংসদ সদস্য এডিএম শহিদুল ইসলাম।

0

নিজস্ব  প্রতিনিধি 

শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলায় প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত ২০ টি পরিবারের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ টাকার চেক বিতরণ করা হয়েছে। ৪ এপ্রিল বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ চত্তরে এই বিতরণ কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ ভুঁইয়ার সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, শেরপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য এ.ডি.এম শহিদুল ইসলাম।উপজেলা প্রশাসন ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের আয়োজনে উক্ত বিতরণ অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মাঝে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. আশরাফুল কবীর, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শ্রী বিশ্বজিৎ রায়,সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সুরুজ্জামান আকন্দ,জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আবু তাহের,উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি ডাঃ কামাল হোসেন, উপজেলা যুব লীগের সাবেক সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা যুব লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম,সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন চাঁন সহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ,প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার সহ গণমাধ্যম কর্মিগণ উপস্থিত ছিলেন।উক্ত বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত ২০ টি পরিবারকে ১ বান্ডিল ঢেউটিন এবং ৩ হাজার টাকার নগদ চেক প্রদান করা হয়।

ঝিনাইগাতীতে শতরুপা খেলাঘর আসরের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল

0

নিজস্ব প্রতিনিধি :

শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার ঐতিহ্যবাহী সংগঠন শতরুপা খেলাঘর আসরের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২ এপ্রিল মঙ্গলবার বিকেলে ক্লাব কার্যালয়ে এর আয়োজন করা হয়।সংগঠনের সভাপতি মো.আব্দুল মান্নান এর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ রায়ের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, জেলা খেলাঘর আসরের সাধারণ সম্পাদক নন্দ সাহা, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আবু তাহের,বণিক সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব মো. মোখলেসুর রহমান খাঁন মক্কু,উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি জয়নাল আবেদিন, আদর্শ কো-অপারেটিভ কেডিট ইউনিয়ন লিঃ এর চেয়ারম্যান সালে আহম্মেদ,শতরুপা খেলাঘর আসরের সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব, সাইফুল ইসলাম সেজু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি ডাঃ কামাল হোসেন প্রমুখ।আলোচনা সভা শেষে ইফতারের আগে সংগঠনের মৃত সদস্যদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা সহ দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনা করে দোয়া করা করা। ইফতার ও দোয়া মাহফিলে সংগঠনের সকল সদস্য সহ বাজারের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এতে অংশ গ্রহন করেন।

পার্বতীপুর শহরের প্রানকেন্দ্র দৌলতপুর মহল্লায় গলায় ফাঁস দিয়ে গৃহবধূর আত্মহত্যা

0

মেনহাজুল ইসলাম তারেক, দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি:

পার্বতীপুর শহরের প্রানকেন্দ্র দৌলতপুরের একটি বাসায় মোনালিসা আফরোজ মুক্তা (৩২) নামক এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছে। জানা যায়, আজ মঙ্গলবার বেলা ৩ টার দিকে হঠাৎ করে শোয়ার ঘর ভিতর থেকে বন্ধ করে ছাদের ফ্যানের সাথে ওড়না পেচিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে ঔষধ বিক্রেতা ফারুক উজ্জামান ফারুকের স্ত্রী আত্নহত্যা করে। মুক্তার স্কুল পড়ুয়া বড় মেয়ে দরজা খুলতে না পেরে চিৎকার করলে তা জানাজানি হয়। খবর পেয়ে রেলওয়ে থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। এলাকাসূত্রে জানা যায়, মুক্তার স্বামী ফারুক ছোটখাটো ঔষধ ব্যবসার সাথে জড়িত থাকলেও সংসারে অভাব ছিলো। অভাবের রেশ ধরে পারিবারিক কলহের কারনে আত্নহত্যাটি সংঘটিত হতে পারে বলে অনেকের ধারনা। উল্লেখ্য উপজেলার বেলাইচন্ডি ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া ব্রহ্মতর গ্রামের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ডাক্তার সুলতানের ছেলে ফারুকের সাথে একই উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের শিমুলিয়া পাড়া গ্রামের মোসলেমউদ্দীনের মেয়ে মুক্তার সাথে প্রায় ১২ বছর আগে তাদের বিবাহ সম্পন্ন হয়। তাদের সংসারে দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।এ ব্যাপারে রেলওয়ে থানার ওসি সাকিউল আলমের সাথে কথা হলে জানান, আপাতত একটি ইউডি মামলা নেয়া হয়েছে এবং ময়নাতদন্তের জন্য লাশ দিনাজপুর মর্গে পাঠানো হয়েছে।

পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে মন্মথপুর ইউনিয়নে মতবিনিময় ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

0

মেনহাজুল ইসলাম তারেক, দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি:

আজ সোমবার (০১ এপ্রিল) পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে মন্মথপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের ব্যবস্থাপনায় ইউনিয়ন পরিষদ চত্ত্বরে এক মত বিনিময় সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। ইফতারের পূর্বে একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় এ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব হাফিজুল ইসলাম প্রামানিক। ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ওয়াদুদ আলী শাহ এর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য দেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক ও উপজেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম নেতা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম রসুল মিন্টু। উপস্থিত ছিলেন, ভাইস চেয়ারম্যান আমিরুল মোমেনিন (মোমিন) ও রুকশানা বারী রুকু, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি মোশাররফ হোসেন সমাজ ও সাধারন সম্পাদক গোলাম ফারুক অভি। মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও আসন্ন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সুলতানা নাসরিন, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ।পুরো অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন মন্মথপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শামিনুর ইসলাম বাবলু আরও উপস্থিত ছিলেন অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।মতবিনিময় সভায় আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে মনোনীত প্রার্থীদের পরিচিতি তুলে ধরা হয় ও ইফতার শেষে সভার কাজ সমাপ্ত ঘোষণা হয়।

আমেরিকা প্রবাসীর মরদেহ উদ্ধার শেরপুরে!আটক-৪

0

মোহাম্মদ দুদু মল্লিক শেরপুর প্রতিনিধি।

শেরপুরে আব্দুল হালিম জীবন (৪৮) নামের এক আমেরিকা প্রবাসীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ৩১ মার্চ রবিবার সদর উপজেলার চরপক্ষীমারী ইউনিয়নের চুনিয়ারচর এলাকা থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত যুবক শেরপুর পৌর শহরের মধ্য ন‌ওহাটা (জেলখানা মোড়) এলাকার সাইদুর রহমান সুজন মাষ্টারের ছেলে।এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাবেক এক ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন,চরপক্ষীমারী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মো.আব্দুর রউফ,মুকুল হোসেন, রাশেদুল ইসলাম ডিয়ার ও ফরহাদ হোসেন।নিহতের পরিবার সুত্রে জানা গেছে,আব্দুল হালিম জীবন প্রায় ১৬ বছর আগে ডিভি লটারির মাধ্যমে নাগরিকত্ব পেয়ে আমেরিকা গমন করেন। পরে বিয়ে করে তার স্ত্রীকেও আমেরিকায় নিয়ে যায়। গত প্রায় দুই বছর আগে প্রবাস থেকে শেরপুরে এসে আর আমেরিকা ফেরত যায়নি। সম্প্রতি তিনি শেরপুর শহরের চাপাতলী এলাকায় আতিয়া আক্তার নামে এক নারীকে দ্বিতীয় বিবাহ করেন।শেরপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.এমদাদুল হক লাশ উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,এই ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে।এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি সহ পূর্নাঙ্গ তদন্ত চলছে।

এই পোর্টালের কোনো নিউজ কপি হবে না